দক্ষিনখানে পরকিয়ার জেরে ইমামের হাতে যুবক খুন

   ছয়দিন পর সেপ্টিটেংক থেকে অর্ধগলিত ৬ টুকরো  খন্ডিত লাশ উদ্ধার করেছে র‍্যাব -১, ইমাম আটক। 

 শাকিবুল হাসানঃ দক্ষিণখান থানাধীন সরদার বাড়ি জামে মসজিদের সেপটিক ট্যাংক হতে  আজহার (৩০) নামক এক পোশাক শ্রমিকের খন্ডিত লাশ উদ্ধার করা হয়ছে।
সরদারবাড়ী জামেমসজিদের ইমামকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, মাওলানা মোঃ আব্দুর রহমান সরদারবাড়ি জামে মসজিদে ৩৩ বছর
ইমামতি করে আসছে। নিহত আজহার এর ছেলে মোঃ আরিয়ান (৪) উক্ত মসজিদের মক্তবে পড়াশোনা করত।
ভিকটিম নিজেও তার কাছে কুরআন শিক্ষা গ্রহণ করেছেন। তারই সুবাদে ইমাম ও নিহত আজহার এর মধ্যে  পারিবারিক
সম্পর্ক গড়ে উঠে।
গত ১৯ মে ধৃত আসামী মাওলানা মোঃ আব্দুর রহমান এর সাথে নিহত আজহার এর
কথা কাটাকাটি হয়। কথাকাটির এক পর্যায়ে ইমাম আব্দুর রহমান ক্ষিপ্ত হয়ে আজহারকে ধারালো অস্ত্র
দিয়ে আঘাত করলে সে ঘটনাস্থলেই মৃত্যুবরণ করেন। পরবর্তীতে এই হত্যাকান্ডের ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার উদ্দেশ্যে
হত্যাকারী ইমাম লাশ টুকরো টুকরো করে সরদার বাড়ি জামে মসজিদের সেপটিক ট্যাংকে লুকিয়ে রাখে।
আসামী বর্ণিত হত্যাকান্ডে সরাসরি জড়িত থাকার কথা  স্বীকার করেছেন।
এলাকাবাসীর সুত্রে জানাযায়, নিহত আজহারুল ইসলাম এর স্ত্রীর সাথে ইমাম আব্দুর রহমানের পরকিয়ার সম্পর্ক ছিলো।পরকিয়ার সম্পর্কের কথা জানতে পারায় ইমামের কক্ষে ডেকেনিয়ে পোশাক শ্রমিক আজহারুল ইসলামকে ইমাম আব্দুর রহমান হত্যা করে।  ধারালো ছুড়ি দিয়ে প্রথমে জবাই করে, পরে ছয় টুকরো করে সেপ্টিটেংকে লুকিয়ে রাখে। নামাজের ভিতর ভুল সুরা পরা, মুসল্লিদের সাথে অস্বাভাবিক আচরন,মসজিদের সিড়িতে রক্তের দাগ এবং সেপটিক ট্যাংক হতে তীব্র দুর্গন্ধ পাওয়ায় এলাকাবাসীর সন্দেহ হয়। এই দিকে বিগত ১৯ মে থেকে আজহারুল ইসলাম
নিখোঁজ ছিলেন। এলাকাবাসীর দেওয়া তথ্যের সুত্রধরে
র‌্যাব-১ এর গোয়েন্দা তৎপরতায় মসজিদের সেপটিক ট্যাংক হতে নিখোঁজ যুবকের খন্ডিত লাশ
উদ্ধার ও হত্যাকান্ডের মূল হোতা মসজিদের ইমামকে  গ্রেফতার করেছেন র‍্যাব ১।
এ ব্যাপারে আরো বিস্তারিত তথ্য উদঘাটনের জন্য
অধিকতর তদন্ত চলমান রয়েছে।
গ্রেপ্তারকৃত আসামীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।