ভোলায় মহরী ব্লাড ফাউন্ডেশনের ১১ নং ভেদুরিয়া ইউনিয়ন কমিটি ঘোষণা

ভোলা প্রতিনিধিঃ যদি হই রক্তদাতা জয় করবো মানবতা” এই স্লোগানকে সামনে রেখে আজ ১৯ মে রোজ বুধবার দুপুরে মহরী ব্লাড ফাউন্ডেশন ভোলা জেলা শাখার ১১ নং ভেদুরিয়া ইউনিয়ন পূনাঙ্গ কমিটি অনুমোদন হয়। মানবতার সেবায় এগিয়ে যেতে নিরলসভাবে কাজ করতে ধীরপ্রতিবদ্ধ মহরী ব্লাড ফাউন্ডেশন নামে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। তারা বলে যে কোন পরিস্হিতিতে ব্লাড সমস্যার সমাধানে আমরা আছি সবসময়। সেচ্ছাসেবী সংগঠন মহরী ব্লাড ফাউন্ডেশন ভোলা জেলা শাখার উদ্যোগে প্রতিষ্ঠাতা ও নির্বাহী পরিচালক মোঃসবুজ আলম ও উপদেষ্টা মোঃরাশেদুজ্জামান হ্যাভেনের স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে আগামী এক বছরের জন্য ১১ সদস্য বিশিষ্ট একটি পূর্নাঙ্গ কমিটির অনুমোদন দেয় সংগঠনটি।

উক্ত কমিটিতে সভাপতি ১.মোঃজুয়েল ২.সহ- সভাপতি ডাঃসুমন ৩.সহ-সভাপতি মোঃমামুন পাটওয়ারী ৪.সাধারণ সম্পাদক –তপু জিসান ৫.যুগ্ন- সাধারণ সম্পাদক -আব্দুল আলী ৬.সাংগঠনিক সম্পাদক আল-আমিন হাওলাদার ৭. সহ সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃআরিফ ৮.দপ্তর সম্পাদক -সাকিব মাহমুদ ৯. অর্থ বিষয়ক সম্পাদক ইব্রাহীম শুভ ১০. স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক- মোসাঃসুরমা ১১.প্রচার সম্পাদক আওলাদ কে মনোনীত করে পূর্নাঙ্গ কমিটির অনুমোদন দেয় প্রতিষ্ঠাতা ও নির্বাহী পরিচালক এবং উপদেষ্টা।

সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা বলেন, স্বেচ্ছায় নিজের রক্ত অন্য কারো প্রয়োজনে দান করাই রক্তদান। তবে রক্তদাতাকে অবশ্যই ১৮ বছর বয়স হতে হবে। প্রতি তিন মাস অন্তর প্রত্যেক সুস্থ ও প্রাপ্তবয়স্ক নর-নারী নিশ্চিন্তে ও নিরাপদে রক্তদান করতে পারেন। এতে স্বাস্থ্যে কোনো ধরনের ক্ষতিকর প্রভাব পড়ে না। তবে রক্তদানের পদ্ধতি ও পরবর্তী প্রভাব সম্পর্কে অজ্ঞতা ও অযথা ভীতির কারণে অনেকেই রক্ত দিতে দ্বিধান্বিত হন।

উপদেষ্টা রাশেদুজ্জামান হ্যাভেন বলেন, রক্তদানে কোনো সমস্যা হয় না। তিনি বলেন একজন সুস্থ মানুষের শরীরে পাঁচ-ছয় লিটার রক্ত থাকে। সাধারণত ২৫০ থেকে ৪০০ মিলিলিটার রক্ত দান করা যায়। যা শরীরে থাকা মোট রক্তের মাত্র ১০ ভাগের এক ভাগ। রক্তের মূল উপাদান পানি, যা ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই পূরণ হয়। তাই রক্তে দিলে ক্ষতি হয় না বরং শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে বলে জানান।