> সংবাদ শিরোনাম
received_4817291981705496

বাঙালিদের মুক্তির সনদ ৬ দফাকে আওয়ামী লীগ ও ছাত্র লীগের কাছে জাগরন সৃষ্টি করেছেন বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব

মুন্সি সালাউদ্দিন আহমেদঃ

সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সহধর্মীনি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মাতা বঙ্গবন্ধুর অবর্তমানে ছাত্রলীগ ও আওয়ামীলীগের পরিচালনাকারী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের ৯২তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে ঢাকার তোপখানা রোডস্থ ক‍্যাফেঝিলে গতকাল ৮ আগষ্ট এক আলোচনা সভার আয়োজন করেছে বাংলাদেশ জাতীয় গণতান্ত্রিক লীগ।

আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ জাতীয় গণতান্ত্রিক লীগের সভাপতি এম এ জলিল

প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন স্বাধীনতা পুরস্কার প্রাপ্ত সাবেক সচিব ও সাবেক বিনিয়োগ বোর্ডের চেয়ারম্যান বঙ্গবন্ধুর হত্যার প্রতিবাদকারী ইতিহাসবিদ সিরাজ উদ্দীন আহমেদ।বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বঙ্গবন্ধু ছাত্র কল্যাণ পরিষদের উপদেষ্টা বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর অবঃ মফিজুল হক সরকার, বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের সভাপতি লায়ন গণি মিয়া বাবুল, শেখ রাসেল জাতীয় শিশু কিশোর পরিষদের সাধারণ সম্পাদক লায়ন মজিবুর রহমান হাওলাদার, কবি নাহিদ রোকসানা, ন্যাপ ভাসানীর চেয়ারম্যান এম এ ভাসানী, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপ-কমিটির সদস্য সাবেক ছাত্র নেতা খন্দকার তারেক রায়হান ও ইদ্রিস আহমেদ, বরিশাল বিভাগ সমিতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ স ম মোস্তফা কামাল, বাংলাদেশ উন্নয়ন পার্টির সভাপতি সৈয়দ মোখলেছুর রহমান, নাগরিক কল্যাণ পার্টির সভাপতি শহীদুন্নবী ডাবলু, পিপলস ডেমেক্রেটিক পার্টির সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান, ইসলামিক ডেমোক্রেটিক পার্টি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন, কনজারগেটিভ পার্টির সভাপতি আনিছুর রহমান দেশ, কৃষক লীগ নেতা ফরিদ আহমেদ, নারী নেত্রী ও কবি মির্জা সেলি, নারী নেত্রী এলিজা রহমান, গণতান্ত্রিক লীগের সহ-সভাপতি মোহাম্মদ আলী, সাধারণ সম্পাদক সমির রঞ্জন দাস ও দপ্তর সম্পাদক কামাল হোসেন প্রমুখ।

প্রধান অতিথির ভাষনে সিরাজ উদ্দীন আহমেদ বলেন ১৯৬৬ সালে বঙ্গবন্ধুর ঘোষিত ৬ দফাকে ছাত্রলীগ আওয়ামীলীগ এর কাছে জাগরন সৃষ্টি করেছিলেন ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, যখন বঙ্গবন্ধু কারাগারে ছিলেন এবং আগরতলা অভিযুক্ত মামলার আসামী ছিলেন তখন ফজিলাতুন্নেছার সাহসীকতায় ৬৯এর গণআন্দোলনে বিশেষ ভূমিকা ছিল।

তিনি বঙ্গবন্ধুর অবর্তমানে তখনকার পূর্ব পাকিস্তানের সকল রাজনীতিবিদের সাথে আওয়ামীলীগের পক্ষে সংলাপ করেছেন। রাজনীতির পক্ষে অবস্থান নেওয়ার জন্য উদ্বুদ্ধ করেছেন। তার বিশেষ ভূমিকার কারণেই বঙ্গবন্ধু বাঙালি জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করেছেন ৭১ সালের তার নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা হয়েছে। আজ বঙ্গবন্ধুর স্বাধীন বাংলাদেশ স্বাধীনতা বিরোধীদের চক্রান্তের কাছে এখনও সঠিকভাবে দাড়াতে পারে নাই। তাই আজকে বঙ্গবন্ধুর সহধর্মীনী ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের জন্মবার্ষিকীতে আমাদের শপথ হউক।

আমরা যেভাবে ১৯৭০-৭১ সনে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে দেশ স্বাধীন করেছি আজ আবার আমরা বঙ্গবন্ধুর তনয়া শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সকল শক্তি ঐক্যবদ্ধ হয়ে বাংলাদেশকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের ক্ষুধা দারিদ্রমুক্ত উন্নত পরিবেশের সমৃদ্ধশালী বাংলাদেশ গড়ব মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে। আমরা যদি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ঐক্য করতে পারি তাহলে দেশের সকল ষড়যন্ত্র চক্রান্ত নির্মূল হবে এবং দেশ হবে আধুনিক, গণতান্ত্রিক আইনের শাসনের।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful