রাজধানীতে করোনায় আক্রান্ত রোগীর হাসপাতাল থেকে পালিয়ে গিয়ে আত্মহত্যা !

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ  রাজধানীর মুগদা জেনারেল হাসপাতাল থেকে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত এক রোগীর  পালিয়ে আত্মহত্যার করেছেন বলে জানাযায়। শুক্রবার রাতে তিনি আত্মহত্যা করেন। শনিবার তার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে মাঠিয়েছে পুলিশ।
আত্মহত্যাকারীর নাম আবদুল মান্নান খন্দকার (৪১)। রাজধানীর আদাবরের ১৭/১৮ হোসেন হাউজিংয়ের সেনসেশন অ্যাপার্টমেন্টের পাশের একটি কাঁঠাল গাছ থেকে আদাবর থানার এসআই আবদুল মোমিন তার লাশ উদ্ধার করেন।
এসআই আবদুল মোমিন সংবাদিকদের জানান, আত্মহত্যাকারী ব্যক্তি আবদুল মান্নান করোনায় আক্রান্ত ছিলেন। তিনি গত ১৫ জুন মুগদা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হন। শুক্রবার রাতে সেখান থেকে পালিয়ে আত্মহত্যা করেন। মরাদেহ ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ মর্গে পাঠানো হয়েছে।
তিনি আরোও জানান, আবদুল মান্নানের স্ত্রী ও এক ছেলে করোনায় আক্রান্ত। তারা বাসায় আইসোলেশনে আছেন।
মান্নানের শ্যালক মুসা আজাদি জানান, তার দুলাভাইয়ের গত ১৫ জুন করোনা শনাক্ত হয়। ওই দিনই তিনি দুলাভাইকে মুগদা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন। ১৯ জুন রাত সাড়ে ১০টার দিকে তিনি হাসপাতাল থেকে পালিয়ে আসেন।
মুসা বলেন, ‘ওই রাতেই দুলাভাই আপাকে ফোনে বলেন, ‘আমিতো একটু আগে মরে যাইতে লাগছিলাম। প্রচণ্ড কষ্ট হইছে।’ কী হয়েছিল জানতে চাইলে কল কেটে ফোন বন্ধ করে দেন। রাতে আপা আমাকে ফোন করে বিষয়টি জানান। কিন্তু তখন আর হাসপাতালে খোঁজ নিতে পারিনি। সকালে মুগদা জেনারেল হাসপাতালে গিয়ে খবর পাই উনি সেখান থেকে পালিয়েছেন।
তিনি বলেন, পরে জানতে পারি আপা-দুলাভাই যে বাসায় থাকতেন তার পেছনে একটি গাছে ঝুলন্ত অবস্থায় দুলাভাইকে পাওয়া গেছে।