মহাসড়কে টোল নেওয়ার পরিকল্পনা প্রণয়নের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, মহাসড়ক ব্যবহার করলে টোল নেওয়ার চিন্তাভাবনা চলছে। কীভাবে টোল নেওয়া যায়, সেই পরিকল্পনা করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশ দিয়েছেন। মঙ্গলবার (১৮ আগস্ট) জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভা শেষে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন, সবকিছু টোলমুক্ত হবে তা ঠিক নয়। রাস্তাঘাট মেরামত, রক্ষণাবেক্ষণের খরচ যাতে টোলের টাকা থেকে আসে সেই ব্যবস্থা করা যেতে পারে। তিনি (প্রধানমন্ত্রী) টোল নেয়ার পক্ষে।

তিনি বলেন, এখানে (প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে) মন্তব্য এসেছে, সড়কে টোল বসানো। টোল সংযোজিত হবে। আমাদের রাস্তা বানাতে হবে। রাস্তা রক্ষণাবেক্ষণ করতে হবে। মেরামত করতে হবে। মেরামত না করলে আপনারা সবাই বিরক্ত হন। টাকা লাগে তো। সুতরাং টোল করে সামান্য টাকা চাঁদা দিয়ে যাবেন। এটা উনি (প্রধানমন্ত্রী) মনে করেন, এটা বোধহয় ফ্রি হওয়া ঠিক নয়। আমি তার সাথে শতভাগ একমত।

তিনি আরও বলেন, তিনি (প্রধানমন্ত্রী) আমাদের নির্দেশনা দিয়েছেন, এ ব্যাপারে পদক্ষেপ নেয়ার জন্য। টোল ফ্রি না করে, টোল যেন নেয়া হয়। যাতে কস্টটা রিকভারি হয়।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, টোলের সিস্টেমটা দ্রুত করতে হবে। গিয়ে দাঁড়িয়ে থাকতে হবে এক ঘণ্টা, এটা ঠিক নয়। এখন টেকনোলজি আছে, তাড়াতাড়ি নিয়ে নিতে হবে।

পরিকল্পনামন্ত্রী জানান, প্রধানমন্ত্রী সড়ক ও জনপথ বিভাগের আওতায় সড়ক নির্মাণ ও মেরামতের কোনও প্রকল্পে বিশ্রামাগার তৈরির জন্য বরাদ্দ না রাখার নির্দেশ দিয়েছেন। এর পরিবর্তে এক প্রকল্পের আওতায় সারাদেশে বিশ্রামাগার নির্মাণের পরামর্শ দেন তিনি। আজ একনেক সভায় তিন থেকে চার কোটি টাকা ব্যয়ে দুটি বিশ্রামাগার নির্মাণের বরাদ্দ কেটে দেওয়া হয়।’