মহানবী (সা.) কে অবমাননার প্রতিবাদে উত্তরখানে বিক্ষোভ

মোঃ ইব্রাহিম, ঢাকা: ফ্রান্সে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) কে কটাক্ষ করে ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শনীর প্রতিবাদে ইত্তেহাদুল উম্মা উত্তরখান এর ব্যানারে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছেন উত্তরখান এলাবাসী ।

শুক্রবার (৩০ অক্টোবর) জুম্মার নামাজ এর পর বিভিন্ন মসজিদ থেকে মুসল্লিগণ মিছিল নিয়ে  উত্তরখান মাজার মসজিদের সামনে সমবেত হন। পরে এক বিশাল মিছিল উত্তরখান মাজার চৌরাস্তা হয়ে চালাবন্দ গিয়ে শেষ হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন ভূইয়া বাড়ী জামে মসজিদ এর খতিব মাওলানা জাফরুল্লাহ, আটিপাড়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ এর খতিব মুফতি মুস্তফা কামাল, হযরত শাহ্ কবির (র.) কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ এর খতিব মাওলানা লেহাজউদ্দীন, মাদার বাড়ী জামে মসজিদ এর খবিত মুফতি সাইফুল ইসলাম, বাইনুন ফাতাহ্ জামে মসজিদ এর খতিব মাওলানা রিয়াজ উদ্দিন, শান্তি নিকেতন জামে মসজিদ এর খতিব মাওলানা ইব্রাহীম আজাদী, হামিউসুল্লাহ্ মাদ্রাসার মুহতামিম মুফতি শফীউল্লাহসহ বিভিন্ন মসজিদ ও মাদ্রাসার ওলামায়েকেরামগণ।

5এ সময় বক্তারা বলেন, ফ্রান্সে সরকারের প্রত্যক্ষ মদতে ইসলামকে অবমাননা করে রাসুল (সা.) কে নিয়ে ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন করা হয়েছে। এর প্রতিবাদে আজ আমরা এখানে সমবেত হয়েছি। শুধু ফ্রান্সে নয়, বিশ্বের অনেকগুলো দেশে এ ধরনের কর্মকাণ্ড বেড়ে গেছে। আমরা সেই সব ঘটনার নিন্দা জানাই। ফ্রান্স সরকার তাদের নিজেদের সেক্যুলার হিসেবে দাবি করে। একটি সেক্যুলার রাষ্ট্র সরাসরি কোনও ধর্মকে আঘাত করে কিছু করতে পারে না। আমরা এর তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি এবং সারাবিশ্বের মুসলমান দেশকে প্রতিবাদ জানানোর আহ্বান জানাচ্ছি।

বক্তারা আরো বলেন, ফান্সের শার্লি এবদো নামে একটি ম্যাগাজিন নবী করিম (সা.) কে নিয়ে ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন করেছে। বাক স্বাধীনতা এমনভাবে উপভোগ করতে হবে যাতে তা অন্য কোনও ধর্ম বা কারও ধর্মীয় বিশ্বাসকে আঘাত না করে। মুহাম্মদ (সা.) কে মুসলমান জাতি তাদের নয়নের মনি কোটায় স্থান দিয়েছে। তাকে অমর্যাদা করে ফ্রান্সে যা করা হয়েছে আমরা তার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

উল্লেখ্য গত ১৬ অক্টোবর ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে এক স্কুলশিক্ষককে গলা কেটে হত্যা করা হয়। এ সম্পর্কে পুলিশ জানায়, হামলাকারীর বয়স ১৮ বছর। তিনি চেচেন জাতিগোষ্ঠীর এবং জন্ম রাশিয়ার মস্কোতে। নিহত শিক্ষক রাষ্ট্রবিজ্ঞান পড়াতেন। মতপ্রকাশের স্বাধীনতা ক্লাসে তিনি শিক্ষার্থীদের মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর কার্টুন দেখিয়েছিলেন। তার পর তাকে হত্যা করা হয়। এ ঘটনার পর ফ্রান্সের পুলিশ দেশটির অন্তত ৫০টি মসজিদ এবং মুসলিম অধ্যুষিত এলাকায় ভয়াবহ অভিযান চালায়। সাড়ে পাঁচ বছর আগে মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) কে নিয়ে বিতর্কিত কার্টুন ছাপানোর পর ফ্রান্সের ব্যঙ্গাত্মক ম্যাগাজিন শার্লি এবদোতে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটে। আবারও সেটি ছাপিয়েছে ম্যাগাজিনটি। এ নিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠলেও এর পক্ষে শক্ত অবস্থান নিয়েছেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাকরোঁ।