ভোলায় যৌতুকের জন্য গৃহবধূকে হাত-পা বেধেঁ নির্যাতন

ভোলা প্রতিনিধিঃ ভোলা জেলার দৌলতখান উপজেলায়  রোকেয়া নামে এক গৃহবধূকে হাত-পা বেধে রুমে আটকিয়ে নির্যাতন করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বর্তমানে ওই গৃহবধূ দৌলতখান হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। এ ঘটনায় দৌলতখান থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন ভুক্তভোগী ওই গৃহবধূ। অভিযোগ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেছেন।

আহত গৃহবধূ ও তার পরিবার স্বজনরা জানান, প্রায় ৭ মাস আগে দৌলতখান উপজেলার সৈয়দপুর ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের ইয়াছিনের মেয়ের সাথে একই ওয়ার্ডের নাছিরের ছেলে সোহাগের সঙ্গে বিয়ে হয়।

বিয়ের কিছুদিন যেতে না যেতেই তার শ্বশুর -শ্বাশুরী যৌতুক হীসেবে বিভিন্ন মালামাল দেয়ার জন্য আহত গৃহবধূকে বিভিন্ন সময় চাপ প্রয়োগ করে আসছে। তার গরীব বাবা- মা তার সংসারের কথা ভেবে এসব সব কিছুই মেনে নিয়েছেন। এসব মালামাল সঠিক সময়ে এনে দিতে না পারায় বিভিন্ন সময় বিভিন্ন অযুহাতে ওই গৃহবধূকে তার স্বামী শ্বশুর- শ্বাশুড়ী ননদরা মিলে অমানুষিক নির্যাতন করতেন।

সম্প্রতি গতকাল তার স্বামী শ্বশুর- শ্বাশুড়ী ননদরা মিলে যৌতুকের ওইসব মালামাল না এনে দিতে পারায় ওই গৃহবধূকে রুমে আবদ্ধ করে তার হাত-পা বেধে লাটি দিয়ে পিটিয়ে তার শরীরের বিভিন্ন অংশ জখম করে দেয়। দৌলতখান হাসপাতালের কর্মরত চিকিৎসক জানান, আহত গৃহবধূর শরীরের একাধিক আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এঘটনার পর স্বামী সোহাগ হোসেন পলাতক রয়েছেন। দৌলতখান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি বজলার রহমান জানান, এঘটনায় একটি লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে । তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।