পাইকগাছায় লেয়ার পোল্ট্রি চাষে ভাগ্য ফিরেছে রামকৃষ্ণ সাধুর

ইমদাদুল হকঃপাইকগাছায় পোল্ট্রি (লেয়ার) চাষ করে ভাগ্য খুলেছে রামকৃষ্ণ সাধুর। সে উপজেলার মেলেক পুরাইকাটি বোয়ালিয়া সাধু খাঁ পাড়ার জগদীশ চন্দ্র সাধুর ছেলে।
রামকৃষ্ণ সাধু পিতার আর্থিক অনাটনের কারণে বেশি দূর লেখাপড়া করতে পারেনি। প্রথমে গদাইপুর ইউনিয়নের নতুন বাজার ও সর্বশেষ বোয়ালিয়া মোড় নামক স্থানে সাইকেল মেরামতের পাশাপাশি ব্যাটারী চার্জের ব্যবসা করতেন। এ ব্যবসায় তিনি বেশি দূর এগুতে না পেরে তার এক আত্মীয়ের নিকট থেকে ৫ হাজার টাকা ধার করে ও বাকীতে ১৯৯৮ সালে পোল্ট্রি (লেয়ার) প্রজাতির মুরগীর চাষ শুরু করেন। সেখান থেকে প্রথমে মুরগীর ডিম বিক্রয় করে ধার দেনা শোধ করেও ১০ হাজার টাকা লাভ করেন। এরপর রামকৃষ্ণ সাধুর পিছনে তাকাতে হয়নি। তার লভ্যাংশের টাকা দিয়ে সে দীর্ঘ ২২ বছর ধরে একই ব্যবসা করে বর্তমানে ২টি মুরগীর ফার্ম গড়ে তুলেছে। তার ফার্মে এখন ডিমের মুরগী রয়েছে ১ হাজার ৮ শ। প্রতিদিন ১ হাজার ৬ শ মুরগীতে ডিম দেয়। রামকৃষ্ণ প্রতিদিন ১২ হাজার টাকার ডিম বিক্রি করে। মুরগীর খাবার ও আনুসঙ্গিক খরচ বাদে মাসে লক্ষাধিক টাকা লাভ করে।
সে আরো জানিয়েছে, করোনার কারণে কিছু দিন ডিমের দাম কম হওয়ায় একটু লাভ কম হয়েছিল। এখন ডিমের বাজার ভালো। এভাবে যদি ডিমের বাজার ভাল থাকে অনেক বেশি লাভবান হবো। আমার অনুপ্রেরনায় এলাকায় ও আমার আত্মীয় স্বজনেরা কয়েকটি ফার্ম গড়ে তুলেছে এবং তারা বর্তমানে সাবলম্বী।