খুলনা সিটি কর্পোরেশনের বর্জ্য ব্যবস্থার উন্নয়ন

শিশির রঞ্জন মল্লিকঃ খুলনা মহানগরীর বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কার্যক্রম আধুনিকায়নের লক্ষ্যে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় ‘‘খুলনা সিটি কর্পোরেশনের বর্জ্য ব্যবস্থাপনার উন্নয়ন’’ শীর্ষক প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এবং জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে গতকাল সকালে অনুষ্ঠিত ২০২০-২১ অর্থবছরের ১৫তম সভায় ৩’শ ৯৩ কোটি ৪০ লক্ষ ৬০ হাজার টাকার এ প্রকল্পটির অনুমোদন দেয়া হয়। একনেক সভায় অংশগ্রহণের জন্য সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক ভোরে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হন এবং শেরে বাংলা নগরস্থ এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় অংশগ্রহণ করেন। নগরবাসীর প্রত্যাশার আলোকে বিপুল অর্থের এ প্রকল্পটির অনুমোদন দেয়ায় সিটি মেয়র মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, খুলনাসহ দক্ষিণ-পশ্চিামাঞ্চলের উন্নয়নে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সব সময় আন্তরিক। ইতোপূর্বেও তিনি খুলনা মহানগরীর উন্নয়নে দু’টি প্রকল্পের অনুকুলে প্রায় এক হাজার পাঁচশ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন। এ মহানুভবতার জন্য সিটি মেয়র মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। ‘খুলনা সিটি কর্পোরেশনের বর্জ্য ব্যবস্থার উন্নয়ন’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় আধুনিক প্রযু্িক্ত ব্যবহারের মাধ্যমে গৃহস্থালীর বর্জ্য দ্রুত  সংগ্রহপূর্বক তা টেন্সিং গ্রাউন্ডে ফেলা, জলাবদ্ধতা নিরসনের লক্ষ্যে খাল খনন, নিয়মিত ড্রেন পরিস্কারের জন্য আধুনিক যন্ত্রপাতি ক্রয়, ১৫টি নতুন সেকেন্ডারী ট্রান্সফার স্টেশন ও ১০টি অস্থায়ী ট্রান্সফার স্টেশন নির্মাণ, বর্জ্য অপসারণের জন্য ৫০টি কনটেইনার, বিশেষায়িত ১০টি ট্রাক ও সাধারণ ৩০টি ট্রাক ক্রয়, খালের মাটি ও বর্জ্য অপসারণের জন্য ভাসমান স্কেভেটর, লংবুম স্কেভেটর, ৭টি রাবার প্রটেকঢেউ কম্প্যাক্ট স্কেভেটর, হুইল লোডার ও ১৬টি গার্বেজ লোডার ক্রয় করা হবে। এছাড়া মেটালিক গ্যারেজ সেড, গাড়ির পার্কিং টাওয়ারসহ মাথাভাঙ্গা এলাকায় ২৫ একর জমিতে একটি ডাম্পিং গ্রাউন্ড নির্মাণ করা হবে। বাদ জোহর সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক ঢাকাস্থ বনানী জামে মসজিদে বঙ্গবন্ধু পরিবারের অভিভাবক শহীদ শেখ আবু নাসের-এর সহধর্মিনী ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার শ্রদ্ধেয় চাচিমা এবং জননেতা শেখ হেলাল উদ্দিন এমপি ও শেখ সালাহউদ্দিন জুয়েল এমপি’র মাতা শেখ রিজিয়া নাসের-এর নামাজে জানাযায় অংশগ্রহণ করেন।

পরে তিনি তাঁর সহধর্মিনী পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী হাবিবুন নাহার’কে দেখতে সিএমএইচ-এ যান। সম্প্রতি তিনি করোনায় আক্রান্ত হয়ে সিএমএইচে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। সিটি মেয়র সহধর্মিনীর শয্যাপাশে কিছু সময় অতিবাহিত করেন এবং চিকিৎসার খোজখবর নেন। খুলনা ফিরে সিটি মেয়র সন্ধ্যা ৭টায় নগরীর হোটেল সিটি ইন-এ ‘‘হেলদি সিটিস : আরবান গভর্ণ্যান্স ফর হেলথ এন্ড ওয়েলবিইং ইন খুলনা সিটি কর্পোরেশন’’ শীর্ষক প্রকল্পের সূচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে অংশগ্রহণ করেন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সহায়তায় খুলনা মহানগরীতে প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হবে। উল্লেখ্য, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা প্রকল্পটি বাস্তবায়নের জন্য দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে একমাত্র খুলনা মহানগরীকে নির্বাচিত করেছে।