খুলনায় নারী নির্যাতনকারী ও ধর্ষকের বিচার দাবিতে মানববন্ধন

‘খুলনায় ৫দিনে ৩টি গণধর্ষণ প্রমাণ করে নারীরা নিরাপদে নেই’

শিশির রঞ্জন মল্লিকঃ  ধর্ষণ একটি মারাত্মক অপরাধ। বর্তমানে তা সংক্রমিত ভাইরাসের মতো ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। শিশু থেকে বৃদ্ধ পর্যন্ত কেউ ধর্ষকদের হাত থেকে রক্ষা পায়নি। ধর্ষণের এমন অবস্থা চলতে থাকলে আমাদের সমাজের অদূর ভবিষ্যতে অন্ধকার থেকে অন্ধকারময় জগতে প্রবেশ করবে নিঃসন্দেহে। খুলনায় ৫দিনে ৩টি গণধর্ষণ প্রমাণ করে নারীরা নিরাপদে নেই। নারী ও শিশু নির্যাতনের মামলার যথাযথ প্রয়োগ হচ্ছে না।

নারী ধর্ষণ ,হত্যা ও নির্যাতনের জন্য প্রয়োজনে কঠোর আইন করতে সরকারের প্রতি আহবান জানান। এভাবে বললেন জনউদ্যোগ নারী সেলের মানববন্ধনে বক্তারা।

গতকাল শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় জনউদ্যোগ নারী সেলের উদ্যোগে নগরীর পিকচার প্যালেস মোড়ে ডুমুরিয়ার নারী শ্রমিক ও খালিশপুরের কিশোরীর ধর্ষকদের বিচার ও শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপত্তিত্ব করেন জনউদ্যোগ নারী সেলের আহবায়ক এ্যাডঃ শামীমা সুলতানা শীলু। পরিচালনা করেন এ্যাডঃ মোমিনুল ইসলাম। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিএমএ’র সভাপতি ডাঃ শেখ বাহারুল আলম, বয়রা মহিলা কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ সৈয়দা লুৎফুরন্নাহার, জেপি’র শরিফ শফিকুল হামিদ চন্দন, কমিউিনিস্ট পার্টির নারী সেলের আহবায়ক সুতপা বেদজ্ঞ, নারী নেত্রী রসু আক্তার , মহিলা পরিষদের পপী ব্যনার্জী, দলিলেত ধরা দেবী , ওয়ার্কাস পার্টির মহানগর সভাপতি মফিদুল ইসলাম, সাধারন সম্পাদক জাসদের মহানগর সভাপতি খালিদ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক স ম রেজাউল করিম , সাম্যবাদী দলের এফ এম ইকবাল, সিপিবি’র মিজানুর রহমান বাবু, জাতীয় পার্টির শাহ লায়েকউল্লাহ, মাসাসের কৃষ্ণা দাস, রূপসা সংস্থার প্রোগ্রাম অফিসার অনুপ কুমার মন্ডল, খুলনা উন্নয়ন ফোরামের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ডাঃ মোসাদ্দেক হোসেন বাবলু, গ্লোবাল বাবু, খুলনার শাহ মামুনর রহমান তুহিন, পোল্টি ফিস ফিড শিল্প মালিক সমিতির মো: আব্দুল হালিম, তপন পাল, মো: সামছুর রহমান, শেখ আইনুল হক. কবি সৈয়দ আলী হাকিম,জাসদের মহানগর সাধারণ সম্পাদক মো: আরিফুজ্জামান মন্টু, সঞ্জয় কুমার মল্লিক, মো: সফিকুল ইসলাম, মো: মনির হোসেন,সাংবাদিক রাশীদুল আহসান বাবলু, এ্যাডঃ মো: শহীদুল ইসলাম,নারী নেত্রী ভারতীয় গুহ, শ্যামলী দাস, মোহাঃ এম এ সাদী , সুজন. মন্টু প্রমুখ।

সভায় সূচনা বক্তব্য রাখেন জনউদ্যোগ,খুলনার সদস্য সচিব মহেন্দ্র নাথ সেন।

সভায় বক্তারা ধর্ষকদের সামাজিক ভাবে বয়কট করার জন্য ধর্ষকদের বাড়িতে লাল পতাকা উত্তোলনসহ ধর্ষণের আইন কঠোরতর হওয়ার দাবি জানান।