কাপাসিয়ার ধর্ষণ বিএনপি সমর্থকদের বিরুদ্ধে হওয়ায় তারা এখন চুপ ;সেতু মন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টারঃ  আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক ও যোগাযোগ মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, দেশের বিভিন্ন স্থানে ধর্ষণের ঘটনা নিয়ে বিএনপি নেতারা সরব হলেও গাজীপুরের কাপাসিয়ার ঘটনা নিয়ে কথা বলছেন না।

শনিবার আওয়ামী লীগ গাজীপুর জেলা কমিটির বর্ধিত সভায় ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে তিনি একথা বলেন।

সিলেটে ছাত্রাবাসে গৃহবধূ ধর্ষণে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সমর্থকদের বিরুদ্ধে অভিযোগ এলেও কাপাসিয়ায় বিএনপি সমর্থকদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আসায় দলটির এই নীরবতা বলে দাবি করেন মন্ত্রী।

তিনি বলেন, “তারা কি বিএনপি এবং তাদের ছাত্র সংগঠনের ধর্ষণকারীদের রক্ষা করতে চান? তারা আন্দোলনকে ভিন্ন খাতে নিতে সরকারের পতন চান এখন।”

শান্তিপূর্ণ আন্দোলনকে বিএনপি সহিংস করার অপচেষ্টা করছে বলে দাবি করেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক।

তিনি হুঁশিয়ার করে বলেন, “যারা ষড়যন্ত্রকারী, গুজব রটনাকারী, তাদের চিহ্নিত করার কাজ চলছে। আন্দোলনের নামে কোনো ধরনের অস্থিরতা ও সন্ত্রাস সৃষ্টির অপপ্রয়াস জনস্বার্থে সরকার কঠোর হস্তে দমন করবে।”

ধর্ষণবিরোধী আন্দোলন নিয়ে ‘ঘোলা পানিতে মাছ শিকার’ ঠেকাতে আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের সজাগ থাকতে বলেন কাদের।

তিনি বলেন, “শেখ হাসিনার সরকার শুধু ধর্ষণ আর নারীর প্রতি সহিংসতাই নয়, যে কোনো অন্যায় অপকর্মের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে। ইতোমধ্যে আপনারা দেখেছেন, প্রতিটি ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

“ইদানিং ধর্ষণ সামাজিক ব্যাধিতে পরিণত হয়েছে। শেখ হাসিনা সরকারের অবস্থান অত্যন্ত কঠোর হলেও কোথাও কোথাও কিছু দৃষ্কৃতকারী অপকর্ম করে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে কঠোর শাস্তির বিধান রেখে আইন সংশোধনের প্রস্তাব আসছে।”

এ সময় দলীয় নেতাকর্মীদের অপরাধী-সন্ত্রাসী এবং মাদকসেবীদের দলের আশ্রয়-প্রশ্রয় না দেওয়ার নির্দেশ দেন তিনি।

“খারাপ লোকদের দিয়ে দল ভারী করা যাবে না। খারাপ লোকেরা উন্নয়ন ও অর্জনকে ম্লান করে দেবে।”