ইকবাল চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা ও হয়রানির প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

 

কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধিঃঃ ঢাকার কেরানীগঞ্জে শুভাঢ্যা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ এর উদ্যোগে ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক ও শুভাঢ্যা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী মোঃ ইকবাল হোসেনের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২৯ সেপ্টেম্বর) স্থানীয় এক কমিউনিটি সেন্টারে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে শুভাঢ্যা ইউপি চেয়ারম্যান হাজী ইকবাল হোসেনের পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন জিনজিরা ইউপি চেয়ারম্যান হাজী সাকুর হোসেন সাকু। লিখিত বক্তবে তিনি বলেন, ইউপি নির্বাচনকে সামনে রেখে একটি মহল শুভাঢ্যা ইউপি চেয়ারম্যান হাজী মোঃ ইকবাল হোসেনকে সামাজিকভাবে হেয়প্রতিপন্ন করার লক্ষে নানা অপ-প্রচারে চালাচ্ছে। এমনকি তার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ এনে সাজানো মামলায় আসামি করা হয়েছে ।

লিখিত বক্তব্যে তিনি আরো বলেন, ইউনিয়ন পরিষদের একটি বিচারকে কেন্দ্র করে বহু জাল-জালিয়াত ও প্রতারক চক্রের হোতা মাহমুদা নামের বহুরূপী এক নারীকে ব্যবহার করে একটি মহল তাদের অসৎ উদ্দেশ্য হাসিলের লক্ষে ইকবাল চেয়ারম্যানের নামে বিভিন্ন অপ-প্রচারে লিপ্ত রয়েছে। মূলত ইকবাল হোসেনের ন্যায় বিচার তার বিপক্ষে যাওয়ার কারণে সে চেয়ারম্যানের ওপর ক্ষিপ্ত হয় এবং সে সুযোগে একটি মহল তাকে ব্যবহার করে ইকবাল চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আরো ক্ষেপিয়ে তোলে এবং নানাভাবে মিথ্যা ও বানোয়াট অভিযোগ উত্থাপন করে তাকে নানাভাবে হয়রানির লক্ষে গত ৯ সেপ্টেম্বর ঢাকার চার নম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক তাবাসুম ইসলামের আদালতে একটি মিথ্যা অভিযোগ দাখিল করেন । আদালত বাদির জবানবন্দি গ্রহণ করে পুলিশকে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন। যা বর্তমানে তদন্তাধীন আছে। এ প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে শুভাঢ্যা ইউপি চেয়ারম্যান বলেন, মূলত একটি চক্র সমাজের প্রতিষ্ঠিত ব্যক্তিবর্গকে জড়িয়ে সাজানো মামলায় ফাসিয়ে ব্ল্যাক মেইল করে তাদের কাছ থেকে টাকা পয়সা হাতিয়ে বেড়াচ্ছে। আমিও এমনই এক চক্রের শিকার। তাই তিনি এ সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এই মিথ্যা মামলা ও ষড়যন্ত্রের সুষ্ঠু বিচার ও উক্ত মামলাবাজ চক্রের সকল সদস্যদের গ্রেফতার পূর্বক দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন। তিনি আরো বলেন, আমার বিরুদ্ধে আনিত মিথ্যা অভিযোগকারী ও তার সাঙ্গপাঙ্গদের বিরুদ্ধে আইনের মাধ্যমে যা যা করণীয় তা আমি করবো। যাতে করে ভবিষ্যতে আর কাউকে যেন এভাবে হয়রানির শিকার হতে না হয়।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ কৃষক লীগের সহ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ইফতেখার হোসেন দুলু, ঢাকা জেলা যুবলীগের সদস্য শরিফুল ইসলাম বাদল, দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মিরাজুর রহমান সুমন, শুভাঢ্যা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী বাসের উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক আওলাদ হোসেন শুক্কুর, জিনজিরা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী মো.মুস্তাক হোসেন, কেরানীগঞ্জ গার্মেন্টস ব্যবসায়ী ও দোকান মালিক সমবায় সমিতির সভাপতি হাজী মো.স্বাধীন শেখ, আওয়ামী লীগ নেতা এস.এম রাসেল আহম্মেদ, হাজী মোঃ মুরাদ হোসেন মেম্বার প্রমুখ।