অনিয়মের অভিযোগে এক দিনে ১১ জনপ্রতিনিধি বরখাস্ত

করোনা মোকাবেলায় ত্রাণ বিতরণে ও মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে নগদ অর্থ সহায়তায় অনিয়ম ছাড়াও কর্মস্থলে অনুপস্থিত থাকার অভিযোগে দেশের আরও ১১ জনপ্রতিনিধিকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে সরকার।

তাঁদের মধ্যে চারজন ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান ও ছয়জন ইউপি সদস্য এবং একজন পৌর কাউন্সিলর রয়েছেন।

এ বিষয়ে স্থানীয় সরকার বিভাগ আজ মঙ্গলবার পৃথক প্রজ্ঞাপন জারি করেছে। করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরু হওয়ার পর ত্রাণের চাল চুরিসহ নানা অভিযোগে এ নিয়ে ৮৫ জন জনপ্রতিনিধিকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হলো। এর মধ্যে ২৮ জন ইউপি চেয়ারম্যান, ৫১ জন ইউপি সদস্য, ১ জন জেলা পরিষদ সদস্য, ৪ জন পৌর কাউন্সিলর এবং ১ জন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রয়েছেন।

২ জুন সাময়িকভাবে বরখাস্তকৃত ইউপি চেয়ারম্যানরা হলেন-কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলার সিংপুর ইউপির মো. আনোয়ারুল হক, বাজিতপুর উপজেলার হালিমপুর ইউপির হাজি মোঃ. কাজল ভূঁইয়া, বরগুনা সদর উপজেলাধীন এম বালিয়াতলী ইউপির মোঃ. শাহনেওয়াজ এবং নলটোনা ইউপির হুমায়ুন কবীর।

সাময়িকভাবে বরখাস্তকৃত ইউপি সদস্যরা হলেন- ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার মজলিশপুর ইউপির ২নং ওয়ার্ডের সদস্য হারিছ মিয়া এবং ৭নং ওয়ার্ডের সদস্য হাছান মিয়া, বরগুনা সদর উপজেলার নলটোনা ইউপির ৭নং ওয়ার্ডের সদস্য মোঃ. হারুন মিয়া, ৮নং ওয়ার্ডের সদস্য মোঃ. হানিফ, ১, ২ ও ৩নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা আসনের সদস্য মোসা. রাণী এবং ৭, ৮ ও ৯ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা আসনের সদস্য মোসা. ছাবিনা ইয়াসমিন (পলি)।

এছাড়া চট্টগ্রামের বোয়ালখালী পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোঃ. সোলাইমান বাবুলকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।